বাজারের স্বাস্থ্যসম্মত মাস্ক


প্রশ্ন: বাজারে কোন মাস্ক স্বাস্থ্যসম্মত ?
উত্তর: সার্জিক্যাল মাস্ক ব্যবহার করা সবচেয়ে ভালো, এগুলো ৩ টি লেয়ার থাকে। তবে বাজারে এক লেয়ারের মাস্ক ও পাওয়া যায়, সেগুলো ব্যবহার করা স্বাস্থ্যসম্মত নয়।
প্রশ্ন: কীভাবে বুঝবেন আপনার মাস্ক টি স্বাস্থ্যসম্মত ?
উত্তর: সার্জিক্যাল মাস্কের দুটি দিক মাঝে একটা লেয়ার থাকে। সামনের দিকটা একটু হালকা নীল রঙের এবং পেছনের দিকটা সাদা রঙের। সাদা অংশটা ফিল্টার, যা ভেদ করে জীবাণু ঢুকতে পারে না।
ব্যবহারবিধি:
কেউ যদি ঠাণ্ডা, জ্বর, হাঁচি, কাশি বা অন্য কোনো রোগে আক্রান্ত হয়, তখন *নীল অংশটি বাইরে রেখে মাস্ক ব্যবহার করবেন। এতে করে তাঁর মুখ থেকে ক্ষতিকর কিছু বাইরে যেতে বাধা পাবে এবং অন্য কেউ সহজে আক্রান্ত হবে না।
যাঁরা সুস্থ আছেন এবং ভাইরাস বা জীবাণু প্রতিরোধ করতে চান, তাঁরা সাদা অংশটি বাইরে রেখেই মাস্ক ব্যবহার করবেন। কেননা সাদা অংশ দিয়ে ফিল্টার করেই বাতাস ভেতরে ফুসফুসে ঢুকবে। নীল অংশটি মুখের দিকে থাকবে।
সতর্কতাঃ
১।একটি মাস্ক ২ ঘণ্টার চেয়ে বেশি পড়ে রাখা স্বাস্থ্যসম্মত নয় । ধুয়ে পুনরায় ব্যবহার উপযোগী নয় ।
২।কোন ভাল মানের মাস্ক একটানা ৮ ঘন্টার বেশি পরড়া স্বাস্থ্যসম্মত নয়। কিন্তু আমাদের পক্ষে তো আর বার বার এই মাস্ক পরিবর্তন করা সম্ভব না। কাজেই সর্বোচ্চ এক দিন ব্যবহার করুন।
৩।ব্যবহার শেষে যেখানে সেখানে না ফেলে রোগ জীবাণু যেন না ছড়ায় সেভাবে কাগজের প্যাকেটে মুড়ে ডাস্টবিনে ফেলে দিন।
৪)হাত সাবান / Elite Hand Senitizer/ Hand wash দিয়ে ধুয়ে তারপর মাস্ক ভিতরে তর্জনি আঙ্গুল দিয়ে খুলুবেন। মাস্ক খুলার পর মুখ পরিষ্কার করা যেতে পারে।
৫) কাপড়ের মাস্কও ব্যবহার করা যেতে পারে কিন্তু এটা আপনাকে শুধু ধুলো-বালি inhalation (শ্বসন) থেকে রক্ষা করবে।