জীবন বাঁচান সচেতন হোন, ডেঙ্গু রোধে এগিয়ে আসুন...


ডেঙ্গু ভাইরাসজনিত রোগ, এর তেমন কোনো ওষুধ নেই। নেই কোনো ভ্যাকসিন, যদিও ভ্যাকসিন উদ্ভাবনের চেষ্টা চলছে। তাই এখন পর্যন্ত প্রতিরোধই একমাত্র ভরসা। সচেতনতাই প্রধান পদক্ষেপ।

ডেঙ্গুর ভাইরাস মানুষ থেকে মানুষের দেহে ছড়ায় এডিস মশার মাধ্যমে। এডিস মশার দুই রকম প্রজাতি আছে:

·  এডিস ইজিপ্টি

·  এডিস এলবোপিক্টাস

তবে আমাদের এই অঞ্চলে এডিস ইজিপ্টিই বেশি। এরা কামড়ায় সাধারণত দিনের বেলায়, বিশেষ করে শেষ বিকেলে।

এডিস মশা একটু গৃহী ধরনের। পছন্দ করে আবদ্ধ জলাধার। এরা বাসাবাড়ির টবে, ফ্রিজের পেছনে জমে থাকা পানি, এসির পানি, কমোডে আটকে থাকা পানি ইত্যাদিতে বংশবিস্তার করে। রাস্তার খানাখন্দ, পড়ে থাকা পুরোনো টায়ার, যেকোনো রকমের পাত্র, জেরিক্যান, মোটকথা যেখানে পানি কিছুদিন জমে থাকতে পারে, সেখানেই এদের বসবাস ও প্রজনন।

যেহেতু মশাই এই রোগের একমাত্র বাহক, সুতরাং মশার আবাস ও প্রজননক্ষেত্র ধ্বংস করতে পারলেই এডিস নির্বংশ হবে সমূলে। ডেঙ্গু প্রতিরোধের সর্বোত্তম উপায় তাই এডিস মশার বংশ নাশ।

      ·  বসতবাড়ির আবদ্ধ জলাধার ধ্বংস করতে হবে।

      ·  ফ্রিজের বা এসির পানি দুই দিন পরপর পরিষ্কার করতে হবে।

      ·  বাসার বারান্দায়, টেরিসে বা কার্নিশে খোলা টব থাকলে সেটা পরিষ্কার করতে হবে।

      ·  রাস্তার আশপাশের খানাখন্দ ভরাট করে ফেলতে হবে।

রাজধানীকে পরিচ্ছন্ন ও মশামুক্ত করতে সিটি করপোরেশনের দায়িত্ব তো আছেই, কিন্তু নাগরিক হিসেবে আমাদের দায়ও কম নেই। এর আগেও আপৎকালে ও দুর্যোগে যেমন এ দেশের মানুষ কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে নেমে এসেছে, এখন সময় এসেছে আবার। যথাযথ কর্তৃপক্ষের দিকে না তাকিয়ে পাড়া-মহল্লায় তরুণেরা দল বেঁধে নিজেরাই নেমে পড়তে পারেন এই কাজে। কাজগুলো করতে হবে ডেঙ্গু মৌসুম শুরুর আগেই। ডেঙ্গু মৌসুম মানে মে থেকে সেপ্টেম্বর—এই পাঁচ মাস।